সমস্ত যত্ন নেবার পরও আপনার চুলের বৃদ্ধি অনেক ধীর; একটু দেখুন তো এই কারণগুলো দায়ী নয় তো?

কোথায় যে গলদ তা ধরতেই পারছেন না? আরে আপনার চুলের কথা বলছি। সব যত্ন নেয়া শেষ তবুও আশানুরূপ বৃদ্ধি পাচ্ছে না আপনার চুল?

কালো একঢাল চুল সব মেয়েরই স্বপ্ন। চুল যাতে সুন্দর ও স্বাস্থ্যকর হয় তার জন্য আমরা অনেক দামি দামি জিনিস ব্যবহার করি। কিন্তু একটা সময়ের পর আমাদের চুলের বৃদ্ধি বন্ধ হয়ে যায়। যা আমাদের কাছে দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। চুল বৃদ্ধি না হওয়ার অনেক কারণ থাকে। এই কারণগুলি নিয়েই নিম্নে আলোচনা করা হল।

তেল

তেল আমাদের চুলের গোড়ায় পুষ্টি দান করে। এবং আমাদের চুলকে শক্ত-পোক্ত করে তোলে। তাই আমাদের সবার উচিত সপ্তাহে একবার অন্তত তেল লাগানো। কারণ তেল চুলের পুষ্টি জোগায়। আমরা যদি তেল ব্যবহার না করি তাহলে চুল হয়ে যায় রুক্ষ। ফলে চুল মাঝখান থেকে ভাঙতে শুরু করে এবং চুলের বৃদ্ধিও বন্ধ হয়ে যায়।

হেয়ার স্টাইল

সবসময় একই হেয়ার স্টাইলের ফলে চুলে আক্সিজেনের অভাব দেখা যায়। আমরা ভাবি চুল খোপা করে রাখলে বা বেণী করে রাখলে চুল ভালো থাকে। কিন্তু এর ফলে চুল অক্সিজেন পায় না। তাই মাঝেমাঝে চুল খুলে রাখা উচিত। এবং চুলের হেয়ার স্টাইল ও পরিবর্তন করা উচিত।

প্রতিদিন চুল ধোয়া

অনেকে নিয়ম করে প্রতিদিন চুলে জল দেন। কিন্তু প্রতিদিন চুলে জল দিলে মাথার প্রাকৃতিক তৈলাক্ত পদার্থ যা চুলকে স্বাভাবিকভাবে ময়শ্চারাইজ় করে তা নষ্ট হয়ে যায়। ফলে চুল রুক্ষ ও অস্বাস্থ্যকর হয়ে ওঠে, এবং তা চুলের গ্রোথকেও নষ্ট করে দেয়।

যন্ত্রের ব্যবহার

সবই চায় তাকে যেন একটু অন্যরকম দেখতে লাগে। তাই চুলে স্টাইল করবার জন্য অনেক সময় আমরা চুল স্ট্রেটনিং বা কার্লিং করি। ফলে আমাদের চুলে নানা রকমের যন্ত্রের ব্যবহার করা হয়। যা চুল নষ্টের অন্যতম কারণ।

ট্রিম

আমাদের অনেকে ভুল ধারণা থাকে চুল ট্রিম করলে তা ছোটো হয়ে যায়। তা আর বাড়ে না। কিন্তু এই ধারণা সঠিক নয়। চুলের সঠিক বৃদ্ধির জন্য ২ থেকে ৩ মাস অন্তর অন্তর চুলে ট্রিম করা উচিত। ট্রিম করবার ফলে চুলের আগাছা বাদ পড়ে যায়। ফলে চুল তাড়াতাড়ি বাড়তে পারে।

নতুন নতুন পণ্যের ব্যবহার

মাঝে মাঝে চুলের ভালোর জন্য চুলে নতুন পণ্য ব্যবহার করা ভালো। কিন্তু আমরা যদি প্রতিদিনই চুলে নতুন নতুন পণ্য ব্যবহার করি তাহলে তা চুলকে রুক্ষ করে দেয়। ঘন ঘন পণ্য পরিবর্তনের ফলে চুল লম্বা নাও হতে পারে।

ময়েশ্চারাইজারের অভাব

চুল শ্যাম্পু করবার পর আমাদের উচিত চুলকে ময়েশ্চারাইজ করা প্রয়োজন। কিন্তু এটি আমরা অধিকাংশ সময়েই করি না। ফলে শ্যাম্পু করবার পর আমাদের স্ক্যাল্প থেকে প্রাকৃতিক তৈলাক্ত পদার্থ চলে যায়। ফলে চুল হয়ে পড়ে রুক্ষ এবং প্রাণহীন। ফলে চুল সঠিকভাবে বৃদ্ধি পায় না।

রাতের যত্ন

রাতে চুল খুলে ঘুমানো উচিত নয়। চুল খোলা রেখে ঘুমালে ঘষা লেগে লেগে চুলের ডগা ফেটে যেতে পারে। যা পরবর্তীতে চুল লম্বা হতে বাধা দান করে। তাই চুল বেণী করে বা বেঁধে ঘুমাতে যাওয়া উচিত।